হোন্ডা লিভো বাংলাদেশ প্রাইস

হোন্ডা লিভো বাংলাদেশ প্রাইস

হোন্ডা লিভো বাংলাদেশ প্রাইস: জাপানের একটি বিখ্যাত এবং জনপ্রিয় মোটরসাইকেল নির্মাতা কোম্পানি হোন্ডা। এই মোটরসাইকেল ব্র্যান্ডটি ঐতিহ্যবাহী এবং উন্নতিশীল এবং ব্যাপক মোটোজিপি প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন পুরস্কার অর্জন করেছে। হোন্ডার পণ্য তো জাপানে তৈরি, কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশে তাদের অনেক বাইক প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে। তারা দেশে প্রবেশ করার সঙ্গেই গ্রাহকদের জন্য শ্রেষ্ঠ মানের কাস্টমার সার্ভিস প্রদান করছে। তাই হোন্ডার চাহিদা অন্য কোনও ব্র্যান্ডের চেয়ে বেশি বাংলাদেশে।

হোন্ডা নামটি দেশের মানুষের মধ্যে বিশ্বাস এবং অনুভূতির সাথে জড়িত, এবং তাদের যেকোনো পণ্যই আমরা বিশ্বাস করে কিনতে রাজি। ১১০ সিসি সেগমেন্টে তাদের লিভো ড্রাম ১১০ সিসি একটি জনপ্রিয় মডেল, যা ২০২১ সালে নতুন এবং আরও আকর্ষণীয় গ্রাফিক্স নিয়ে মোটরবাইক মার্কেটপ্লেসে আসে। ১০০-১১০ সিসি সেগমেন্টে, হোন্ডা লিভো ড্রাম ১১০ সিসির এর মূল্য আশা করা ছিল একটু বেশি হবে। নিচে হোন্ডা লিভো ড্রাম ১১০ এর রিভিউ এবং বিস্তারিত স্পেসিফিকেশন দেওয়া হলঃ

হোন্ডা লিভো বাংলাদেশ প্রাইস ২০২৪: গাড়িটি গত বছরের তুলনায় এবছর বেশ দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে এই গাড়িটির বাজার মূল্য: হোন্ডা লিভো 110 সিসি দাম কত? হোন্ডা হর্নেট ডাবল ডিস্ক বাংলাদেশ প্রাইস

হোন্ডার মডেলবর্তমান মূল্য
Livo Drum CBS১২১,০০০ টাকা।
Livo Disc CBS১৩৪,৫০০ টাকা।
www.pdfarchivebd.Com

বাইকটি কার জন্য ভালো?

দেশের তরুণ প্রজন্মের জন্য হোন্ডা লিভো ১১০ সিসি ড্রিম বাইকটি নির্মাণ করা হয়েছে যা স্পোর্টি ডিজাইনের। এই বাইকটির প্রধান গ্রাহক হলো কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী এবং তরুণ চাকরিজীবীরা। যারা নিয়মিত শহরের রাস্তায় চলাচল করে এবং সুন্দর আউটলুকের গাড়ি চান, তাদের জন্য এই বাইকটি অত্যন্ত উপযুক্ত। রাইডার ও পিলিয়নের জন্য সহজ সিটিং পজিশন এবং অল্প দূরত্বে ভ্রমণের জন্য এই বাইকের জুড়ি অনেক সহায়ক। এই বাইকের ভালো ইঞ্জিন পারফরম্যান্স, দৃঢ় ফ্রেম, ট্রান্সমিশন এবং উন্নত সাসপেনশন সিস্টেমের কারণে গাড়িটি চলাচলে অনেক সহজ এবং সুবিধাজনক।

সহজ নিয়ন্ত্রণ, ভালো জ্বালানির দক্ষতা এবং রাইডার-বন্ধুত্বের জন্য এই বাইকটি মানুষের জন্য অনেক আনন্দময়। এবং তাই এই বাইকটির চাহিদা এখন অনেক বেশি।

হোন্ডা লিভো সি বি সি এস ১১০ সি সি হোন্ডা এক্স ব্লেড এর দাম কত ২০২৩

হোন্ডা লিভো সি বি সি এস ১১০ সি সি

আউটলুক ও ডিজাইন
হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রাম বাইকটি হোন্ডা গাড়িগুলির মধ্যে একটি অন্যতম আকর্ষণীয় ডিজাইনের বাইক। এই বাইকের বড় শরীরে জ্বালানি ট্যাংকটি অত্যন্ত আকর্ষণীয়; এবং এর পাশে একটি বিস্তৃত কাউল রয়েছে। জ্বালানি ট্যাংকের অ্যাংগুলার গভীর এবং পিছন দিকের তীক্ষ্ণ উপস্থাপনা এই বাইকের বুদ্ধিমত্তা আরো বাড়ায়। এই বাইকের হেডলাইট অনেক অ্যাগ্রেসিভ ডিজাইনের, যা এর স্পোর্টি মনোভাব প্রকাশ করে।

হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রামের ফিচার হিসেবে এর সিটিং পজিশন মানসম্মত, এবং ট্যাংকের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ মিল রয়েছে। এটির পেছনের সাসপেনশনে লাল রঙের অ্যালোয় চাকা রয়েছে। ইঞ্জিনের বাইরে কোনো ইঞ্জিন গার্ড না থাকলেও, কালো সাইলেন্সার পাইপটি দেখতে সুন্দর লাগে।

হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রামের দাম প্রাসাঙ্গিক; এই বাইকে ডায়মন্ড ফ্রেম চ্যাসিস দেয়া হয়েছে, যা বাইকের গঠনকে শক্তিশালী এবং রাইডিং স্থিতিশীলতা প্রদান করে। পুরুষোচিত স্পোর্টি উপস্থাপনার সাথে এই বাইকটি সাধারণ কমিউটার বাইকের থেকে আলাদা, এবং এতে রাইডাররা আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

হোন্ডা লিভো সি বি সি এস ১১০ সি সি

ইঞ্জিনের কার্যক্ষমতা
হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রামের তথ্যে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই বাইকের নতুন আপগ্রেড ইঞ্জিনটি অত্যন্ত শক্তিশালী। এই বাইকের ১০৯.১৯ সিসি ডিসপ্লেসমেন্ট এবং ৪ স্ট্রোক ইঞ্জিনটি এয়ার কুলিং ব্যবহার করে ঠান্ডা রাখে। এই ইঞ্জিনের কার্বুরেটর চালিত মোটর থেকে ৭৫০০ আরপিএমে ৮.৩১ বিএইচপি শক্তি এবং ৫০০০ আরপিএমে ৯.০৯ এনএম টর্ক পাওয়া যায়। এছাড়াও, বাইকটির ইঞ্জিনে বিএস৪ এবং এসআই প্রযুক্তি রয়েছে। ইঞ্জিনের বোর এবং স্ট্রোক হল ৫০ এবং ৫৫.৬ মিমি এবং কমপ্রেশন রেশিও ৯.৯ঃ১, যা খুবই ভাল।

গিয়ারবক্স
হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রামে চালিত গিয়ারবক্স হল একটি ৪-স্পিড, যা খুবই শক্তিশালী। এছাড়াও, এটি সিডিআই টাইপ ইগনিশন এবং ওয়েট টাইপ মাল্টিপ্লেট ক্লাচ সিস্টেম রয়েছে। কোম্পানির প্রেতশাব্দিত অনুসারে বাইক ঘন্টায় ৮৫-৯০ কিমি সর্বাধিক গতি প্রাপ্ত করতে পারে।

মাইলেজ
হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রামের জন্য মাইলেজ প্রশংসনীয় হওয়ায় এটি স্মার্ট স্ট্যান্ডার্ড কমিউটার। বাংলাদেশে, এই বাইকটির গড় মাইলেজ প্রতি লিটারে ৬০ কিমির বেশি হওয়ার দাবি করা হয়। কিছু ওয়েবসাইটে হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রাম রিভিউ অনুযায়ী, হাইওয়ে এই বাইকের মাইলেজ প্রতি লিটারে ৬৫ কিমির বেশি পাওয়া সম্ভব। মাইলেজ নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই। ৮.৫ লিটারের ট্যাঙ্ক ক্যাপাসিটির বাইকে এই রকম মাইলেজ প্রশংসনীয়।

বাইকের মাপ এবং সিটিং পজিশন
হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রামের অ্যাগ্রেসিভ মাপ এবং স্ট্যান্ডার্ড সিটিং পজিশন

খুব আরামদায়ক। এই বাইকের দৈর্ঘ্য ২০২০ মিমি, প্রস্থ ৭৩৮ মিমি এবং উচ্চতা ১০৯৯ মিমি। হুইলবেজের দৈর্ঘ্য ১২৮৫ মিমি এবং গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ১৮০ মিমি, যা খুব ভালো।

বাইকের ওজন ১১১ কেজি এবং সিটের উচ্চতা ৮০৫ মিমি, যা বেশ লম্বা। বিশেষ ভাবে দুই পিলিয়নের জন্য এটি খুব সহজে ব্যবহার করা যায়, তবে আমরা এটি সাপোর্ট করি না। সিঙ্গেল সিটটি রাইডার ও পিলিয়নের জন্য খুব আরামদায়ক এবং নিরাপদ।

সাসপেনশন এবং ব্রেক
হোন্ডা লিভো ১১০ ড্রামের সাসপেনশন এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য দুটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে – টেলিস্কোপিক ফোর্ক সাসপেনশন সামনে এবং ৫ ধাপের স্প্রিং-লোডেড হাইড্রোলিক টুইন শক পেছনে। দুটি সাসপেনশন খুব ভাল, বিশেষ করে পেছনের সাসপেনশন রাইডার এবং পিলিয়নের জন্য বেশ সুবিধাজনক। বাইকে প্রত্যেকটি ১৩০ মিমি ড্রাম ব্রেক আছে সামনে ও পিছনে। এবিএস না থাকলেও, সিবিএস ব্রেকিং সিস্টেম বেশ ভাল কাজ করে।

আমাদের দেওয়া তথ্য সম্পর্কে কোন ডাউট থাকলে আমাদের সাথে সরাসরি কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন। তবে আমরা সঠিক তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করি। ধন্যবাদ

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *